মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

গ্রাম আদালত

হানীয়ভাবে পল্লী অঞ্চলের সাধারণ মানুষের বিচার প্রাপ্তির কথা বিবেচনায় নিয়ে স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশ ১৯৭৬ সালে প্রণীত হয় গ্রাম  আদালত অধ্যাদেশ। পরবর্তীতে ২০০৬ সালের ০৯ মে ১৯ নং আইনের মাধ্যমে প্রণীত হয় গ্রাম আদালত আইন ।এ আইনের মূল কথাই হলো স্হানীয়ভাবে স্বল্প সময়ে বিরোধ নিষ্পিত্তি।নিজেদেন মনোনীত প্রতিনিধিদের সহায়তায় গ্রাম আদালত গঠন করে বিরোধ শান্তি পূর্ণ সমাধানের মাধ্যমে সামাজিক শান্তি ও স্হিতিশীলতা বজায় থাকে বলেই এ আদালতের মাধ্যমে আপামর জনগণ উপকৃত হচ্ছেন ।

গ্রামাঞ্চলেরকতিপয়ক্ষুদ্রক্ষুদ্রদেওয়ানীওফেৌজদারীবিরোধস্হানীয়ভাবেনিষ্পত্তিকরারজন্যইউনিয়নপরিষদেরআওতায়যেআদালতগঠিতহয়যেআদালতকেগ্রামআদালতবলে।গ্রামআদালতআইন২০০৬এরআওতায়গ্রামআদালতগঠিতহবে।কমসময়ে, অল্পখরচে, ছোটছোটবিরোধদ্রুতওস্হানীয়ভাবেনিষ্পত্তিকরাইগ্রামআদালতেরউদ্দেশ্য।গত০৯মে২০০৬তারিখহতেগ্রামআদালতআইনকার্যকরহয়েছে।৫(পাচ) জনপ্রতিনিধিরসমন্বয়েগ্রামআদালতগঠিতহয়।এরাহলেনসংশ্লিষ্টইউনিয়নপরিষদেরচেয়ারম্যান, আবেদনকারীরপক্ষের২জনপ্রতিনিধি(১জনইউনিয়নপরিষদেরমেম্বারএবং১জনগণ্যমান্যব্যক্তি) প্রতিবাদীরপক্ষের২জনপ্রতিনিধি(১জনইউনিয়নপরিষদেরমেম্বারএবং১জনগণ্যমান্যব্যক্তি)

 ফৌজদারী বিষয়

১।চুরিসংক্রান্তবিষয়াদি

২।ঋগড়া-বিবাদ

৩।শক্রতামূলকফসল,বাডিবাঅন্যকিছুরক্ষতিসাধন

৪।গবাদীপশুহত্যাবাক্ষতিসাধন

৫।প্রতারণামুলকবিষয়াদি

৬।শারিরীকআক্রমণ,ক্ষতিসাধন, বলপ্রয়োগকরেফুলাওজখমকরা।

৭।গচিছতকোনোমুল্যবানদ্রব্যবাজমিআত্নসাৎ

 দেওয়ানী বিষয়

১।স্হাবরসম্পতিদখলপুনরুদ্ধার

২।অস্হাবরসম্পত্তিবাতারমূল্যআদায়

৩।অস্হাবরসম্পত্তিক্ষতিসাধনেরজন্যক্ষতিপূরণআদায়

৪।কৃষিশ্রমিকদেরপ্রাপ্যমজুরীপরিশোধওক্ষতিপুরণআদায়েরমামলা

৫।চুক্তিবাদলিলমূল্যেপ্রাপ্যটাকাআদায়